বসবাস এবং চাকরীর জন্য সবচেয়ে উপযোগী কিছু দেশ 22/05/2016



একটা সময় ছিল একজন মানুষ যে দেশে জন্মেছে জীবন কাটিয়ে দিত সেখানেই। এখন আর দিন তেমন নেই। আমরা যেমন আছি তার চেয়ে ভাল থাকতে চাই। চাকরীর নিরাপত্তা চাই, বাড়াতে চাই সামাজিক মর্যাদা, সন্তানকে দিতে চাই নিশ্চিত ভবিষ্যত। আসুন জেনে নিই এমন কয়েকটি দেশের কথা যারা এই নিশ্চয়তাগুলো দিচ্ছে তাদের নাগরিককে।  

যুক্তরাষ্ট্র

প্রতি বছর অসংখ্য মানুষ পাড়ি জমায় যুক্তরাষ্ট্রে, নতুন করে আবাস গড়ে এখানে। এখানে খাপ খাওয়ানো সহজ, মানুষও বন্ধুত্বপূর্ণ। চাকরীর রয়েছে অবারিত সুযোগ, তেমনি বিনোদনের ব্যবস্থারও কোন অভাব নেই। এখানে বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষের বাস, তাই সখ্যতাটাও গড়ে ওঠে সেভাবেই।  

সুইজারল্যান্ড

পর্বতময় অপরূপ দেশ সুইজারল্যান্ড জীবন যাত্রার উচ্চমান নিশ্চিত করেছে তার নাগরিকদের। দেশটির ব্যাংকিং ইন্ডাস্ট্রি এবং অর্থনৈতিক বাজারে বিনিয়োগ করতে চায় অনেক দেশ। বিশেষ করে জুরিখে মানুষের জীবন যাত্রা খুবই উচ্চমানের। তাই এই ষরে বা এর আশেপাশে বেশীরভাগ মানুষ স্থান নিতে চান। দেশটির যোগাযোগ ব্যবস্থা খুবই ভাল। চিকিৎসাসেবাও উন্নত। আর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যের কথা তো বলাই বাহুল্য। গ্রীষ্ম হোক বা শীত অবসরে মন খুলে বেড়াতে পারবেন, থাকতে পারবেন প্রকৃতির কাছে।  

ম্যাক্সিকো

সহজেই খাপ খাইয়ে নিতে হলে ম্যাক্সিকো একটি ভাল পছন্দ বটে। দেশটি সুখময় ব্যক্তিজীবন এবং অবসরের জন্য ইতিমধ্যেই খ্যাত। কাজের নানান সুযোগ আছে এখানে। তবে ম্যাক্সিকোতে প্রবাস গ্রহণ করেন যারা তাদের ক্ষেত্রে চাকরী বা অন্যান্য প্রয়োজনের তুলনায় যে কারণটি বিশেষভাবে দেখা যায় তা হল, প্রেম। সঙ্গীর সাথে জীবন সাজাতেই এদেশে আগমণ ঘটে বেশীরভাগ বিদেশীর। তবে ব্যাক্তির নিরাপত্তা প্রদাণের ক্ষেত্রে পিছিয়ে আছে দেশটি।  

লুক্সেমবার্গ

ছোট ইয়োরোপিয়ান দেশটি চাকরীর চমৎকার সব সুযোগ দিয়ে থাকে। বিশেষজ্ঞরা দেশটিকে বসবাসের এবং আর্থিক নিশ্চয়তা লাভের জন্য খুবই উপযোগী মনে করেন। স্বাস্থ্যসেবা এবং নিরাপত্তা ব্যবস্থা বেশ ভাল এখানে। ট্যুরিজম এখানকার অর্থনীতিকে করেছে আরও গতিশীল। স্থানীয় মানুষেরা অবশ্য অত বন্ধুত্বপূর্ণ নয়। একটু কষ্ট হবে মানিয়ে নিতে আর কি!  

ইকুয়েডর

বিশেষজ্ঞরা ইকুয়েডরের আর্থিক অবস্থা নিয়ে খুবই সন্তুষ্ট। তাদের মতে দেশটি খুবই বন্ধুসুলভ, সহজে মিশে যাওয়ার উপযোগী। এখানে কিছুদিনের মধ্যেই আপনার এই অনুভূতি হবে যে, এটা যেন আপনার নিজেরই দেশ। তবে সমস্যা একটাই, সেটা হল ভাষা। আন্তর্জাতিক বিশ্লেষণে দেখা গেছে, স্প্যানিশ না জানা থাকলে ইকুয়েডরে বসবাস খুবই কষ্টদায়ক। তবে আশার কথা হল, প্রতি ৩ জনের মধ্যে ১ জন বিশেষজ্ঞ এই মত দিয়েছেন যে, স্প্যানিশ খুবই সহজ একটি ভাষা। দ্রুতই শিখে ফেলতে পারবেন আপনি। বিশ্বের সবচেয়ে সুখী দেশ হিসেবেও সুনাম আছে ইকুয়েডরের।

সিঙ্গাপুর

দেশটির আর্থিক অবস্থা উন্নত থেকে উন্নততর হচ্ছে। জীবন নির্বাহের জন্য চাকরীর ভাল সুযোগ যেমন রয়েছে তেমনি নাগরিকদের মৈলিক চাহিদার খেয়ালও রাখে দেশটি। যোগাযোগ ব্যবস্থা বেশ ভাল আবার একই সাথে সিঙ্গাপুরের নাগরিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা প্রশংসার দাবি রাখে। জীবন যাত্রা ব্যয় বহুল হলেও অনেকেই এখন পাড়ি দিচ্ছেন এই দেশে। কারণ কাজের নিরাপত্তা থাকলে অন্যান্য সংকট মোকাবেলা করা যায় সহজেই।

জার্মানি

ভাষা শেখা খুবই জরুরী এই দেশে আবাস গড়তে চাইলে। এখানকার মানুষ খুবই বন্ধুত্বপূর্ণ। চাকরীর নিরাপত্তা, নাগরিক জীবনের স্বাধীনতা, মৌলিক অধিকার সব দিক থেকেই নতুন আবাসন হিসেবে ইউরোপের এই দেশটির কথা ভাবতে পারেন আপনি। শিক্ষা ব্যবস্থা, চিকিৎসা ব্যবস্থাও ভাল। তাই নিজের জীবনের পাশাপাশি সুরক্ষিত হবে আপনার ভবিষ্যত প্রজন্মও।  

You might like