যেখানে রাত মানেই বিস্ময়ের শুরু 26/04/2016



রাত সাধারণত নিকশ কালো অন্ধকার, নিস্তব্ধতা, রোমাঞ্চের বিরতি, বিশ্রাম কিংবা ঘুম। রাত সম্পর্কে ধারণাই বদলে যাবে পৃথিবীর রহস্যময় কয়েকটি জায়গায় আকাশের নিচে দাঁড়ালে। রাত এখানে বিস্ময়ের শুরু, রাত এখানে আলোর ফোয়ারা, রাতই রহস্য, রাতই রোমাঞ্চ। জেনে নিন রঙিন রাতের সন্ধান পাবেন কোথায়!

স্প্লিটি ভ্যালি, ভারত

সুখবর হলো, খুব দূরে নয়, মোহনীয় রাতের দেখা মিলবে পাশের দেশ ভারতের স্প্লিটি ভ্যালিতেই। হিমালয় এবিসের প্রত্যন্ত এলাকায় ছোট্ট, শান্ত প্রকৃতির অমোঘ লিলার এ ভান্ডারের অবস্থান। যেকোনো ধরণের আলোর দূষণ থেকে বহু বহু দূরে স্প্লিটির পরিষ্কার আকাশে তাঁরারা মেলে ধরে তাদের আসল রূপ। রাতের আকাশে পরিষ্কার দেখতে পাওয়া মিল্কি ওয়ে অবাক করে দেবে আপনাকে। এক মূহুর্তে যেন অনুভব করতে পারবেন মহাবিশ্বের বিশালতা।

 

লোফোটেন দ্বীপ, নরওয়ে

নরওয়ের দক্ষিণাঞ্চলের আকাশ রঙের যাদুকরি খেলা দেখার জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত জায়গা। এখানে লফোটেন দ্বীপের ঝড়ো আকাশে ভেসে ওঠে রঙিন মনোমুগ্ধকর আলো। এখানকার তাপমাত্রা খুবই চমৎকার। তাই রাতের অন্ধকারে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অনায়াসেই অপেক্ষা করতে পারবেন এ সুমেরুপ্রভা দেখার জন্য। লাল, বেগুনী, সবুজ আর হলুদের এমন দূর্দান্ত বিন্যাস একবার দেখার পর মনে হবে জীবন সার্থক, বেঁচে থাকা অর্থবহ।

ফেয়ারব্যাঙ্কস, আলাস্কা, যুক্তরাষ্ট্র

এ যেন আকাশের বিশাল ক্যানভাসে শিল্পীর তুলির এলোমেলো আচরে আঁকা রঙ্গীন কোন চিত্রকর্ম। পৃথিবী এর নাম দিয়েছে অরোরা। বায়ুমন্ডলে বিভিন্ন গ্যাসীয় বিক্রিয়ার কারণে সৃষ্টি হয় এ রঙের উৎসবের। অক্সিজেন তৈরি করে হলদে সবুজ আলো, নাইট্রোজেনের কারণে আসে নীলের আলোচ্ছটা। স্ফটিকস্বচ্ছ আকাশে বর্নিল আলোরা এনে দেয় অতুলনীয় মুগ্ধতা।

তাসমানিয়া

দক্ষিণের অরোরা বেশি আকর্ষণিয়? নাকি উত্তরের? এই বিতর্কের অবসান নেই। কিন্তু এন্টার্ক্টিকার তাসমানিয়ার অরোরা বিশ্বের সবচেয়ে বেশি উচ্চ মাত্রার রঙের তরং তৈরি করে। উজ্জ্বল আলোরা যেন নেচে বেড়ায় এখানে। স্বচ্ছ আকাশে ভেসে ওঠে ছায়াপথ। দূরের আকাশ যেন কাছে নামতে নামতে ঘিরে ধরে চারপাশ থেকে। আবারো মনে পড়ে, মহাবিশ্ব কত বিশাল রহস্যের ভান্ডার।

স্টিউয়ার্ড আইল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড

নিউজিল্যান্ডের মাওরি জনগণের কাছে এই দ্বীপের আছে ভিন্ন নাম তার অনন্য বৈশিষ্ঠ্যের জন্য। স্টিউয়ার্ড দ্বীপকে মাওরিরা বলে `রাকিউরা`। এর অর্থ হল, `প্রদীপ্ত আকাশ`। মানুষের স্বল্প বসতির কারণে আলোক দূষণ খুবই কম। তাই আকাশ পরিচ্ছন্ন। আর পরিচ্ছন্ন আকাশই অরোরার প্রকৃত রূপ দেখার জন্য আদর্শ। শীতকাল এখানে আসার সঠিক সময়। তাই ব্যাগ গুছিয়ে রাখুন, গ্রীষ্ম পেরোলেই বেড়িয়ে আসুন, ফিরে আসুন কখনোই ভোলা যায় এমন অভিজ্ঞতা নিয়ে।

 

চেরি স্প্রিং স্টেট পার্ক, যুক্তরাষ্ট্র

যখন সাড়া উন্নয়নশীল দেশগুলো তাদের অর্থনৈতিক প্রতিকূলতার কারণে গ্রামে গঞ্জে বিদ্যুৎ পৌঁছে দিতে পারছে না, সেই একই সময়ে উন্নত দেশগুলো মেতেছে অন্যরকম যুদ্ধে। এই যুদ্ধ কৃত্রিম আলোর বিরুদ্ধে। যুক্তরাষ্ট্রের পূর্ব উপকূলে চেরি স্প্রিং স্টেট পার্কে তাই তৈরি করা হয়েছে `dark sky reserve zone`। এখানেই খালি চোখেই দেখতে পাবেন ১০ হাজারের বেশি তারা। আর সবচেয়ে মজার বিষয় হল, এখানে দাঁড়িয়ে আপনি যে আকাশগঙ্গাটি দেখতে পাবেন তা এতই স্পষ্ট যে, তার ছায়া তৈরি হয়। 

You might like