বিশ্বের চমৎকার পাঁচ দেশ 20/04/2016



পৃথিবীর প্রতিটি দেশেই অনেক বিস্ময়কর এবং উত্তেজনাপূর্ণ প্রাকৃতিক দৃশ্য আছে, কিন্তু এই পাঁচ দেশ তাদের অসামান্য প্রাকৃতিক সৌন্দর্য চমৎকার গ্রাম, নিজস্ব পার্ক, আদিম ইতিহাস ঐতিহ্য সুন্দর শহর এবং মনুষ্যসৃষ্ট বিস্ময়কর ও চমকপ্রদ একটা বিরল বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান এর কারনে বিশ্ববাসীর কাছে অনেক বেশি আকর্ষনের কেন্দ্র বিন্দু হয়ে উঠেছে। আর পর্যটন ও মানুষের পছন্দের দিক বিবেচনা করে এ তালিকা করা হয়েছে।

১। ফ্রান্স 
ফ্রান্সের প্যারিসকে বলা হয় পৃথিবীর সবচাইতে শান্তিময় ও শৈল্পিক স্থান। ফ্রান্সকে বলা হয় শিল্প ও সাহিত্যের আদি লীলাভূমি। আয়তনের দিক থেকে ফ্রান্স ইউরোপের তৃতীয় বৃহত্তম রাষ্ট্র। রাশিয়া ও ইউক্রেনের পরেই এর স্থান। আর জনসংখ্যার দিক থেকে এটি ইউরোপের চতুর্থ বৃহত্তম রাষ্ট্র। বিশ্বের সবচেয়ে পুরনো জাতি-রাষ্ট্রের মধ্যে একটি হল ফ্রান্স। মধ্যযুগে ডিউক ও রাজপুত্রদের রাজ্যগুলি একত্র হয়ে একটিমাত্র শাসকের অধীনে এসে ফ্রান্স গঠিত হয়। বর্তমানে ফ্রান্স এর পঞ্চম প্রজাতন্ত্র পর্যায়ে রয়েছে। ১৯৫৮ সালের ২৮শে সেপ্টেম্বর এই প্রজাতন্ত্রের যাত্রা শুরু হয়।

ফ্রান্স ইউরোপীয় ইউনিয়নের অন্যতম প্রধান সদস্য। ফরাসি সংস্কৃতি জগদ্বিখ্যাত; শিল্পকলা, সাহিত্য, বিজ্ঞান, নৃবিজ্ঞান, দর্শন ও সমাজবিজ্ঞানের উন্নয়নে ও প্রসারে ফ্রান্সের সংস্কৃতি ব্যাপক ভূমিকা রেখেছে। মধ্যযুগ থেকেই প্যারিস পাশ্চাত্যের সাংস্কৃতিক জীবনের কেন্দ্রবিন্দু। ফরাসি রান্না ও ফ্যাশন বিশ্বের সর্বত্র অনুসৃত হয়। সম্প্রতি ২০১৩ সালে পর্যটকদের সর্বাধিক ভ্রমণ করা বিস্ময়কর ও সুন্দর দেশগুলোর একটি তালিকা প্রকাশ করেছে বিশ্ব পর্যটন সংস্থা। এ তালিকায় বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দরতম দেশ হিসেবে প্রথম স্থানে রয়েছে ফ্রান্সের নাম।

২। ইতালি 
ইতালি পৃথিবীর সুন্দরতম একটি দেশ। এখানে প্রায় সারা বছর বসন্তকাল বিরাজ করে। অনেকেই ইতালিকেই পৃথিবীর সবচাইতে সুন্দরতম দেশ বলে থাকেন। এটি রেনেসাঁর জন্ম ভুমি। এখানে প্রাচীন শিল্প সাহিত্যের এমন অনেক নিদর্শন রয়েছে যা মানুষকে আকর্শন করে। পশ্চিম ইউরোপের একটি একীভুত প্রজাতান্ত্রিক সংসদীয় রাষ্ট্র। এটি ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত একটি দেশ। শেনঝেন চুক্তিস্বাক্ষরকারী বিধায় শেনঝেন ভিসা নিয়ে এ দেশে প্রবেশ করা যায়। ইউরো অঞ্চলের অন্তর্ভূক্ত বিধায় এর মুদ্রা ইউরো। এ দেশে সংসদীয় গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থা চালু আছে।

৩। নিউজিল্যান্ড
নিউজিল্যান্ড ওশেনিয়ার একটি দ্বীপ রাষ্ট্র। এটি অস্ট্রেলিয়ার দক্ষিণ-পূর্ব দিকে অবস্থিত। এর রাজধানীর নাম ওয়েলিংটন। নিউজিল্যান্ড অসংখ্য ক্ষুদ্র দ্বীপের সমন্বয়ে গঠিত। তবে এদের মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য হল স্টুয়ার্ট দ্বীপ এবং চাথাম দ্বীপ। নিউজিল্যান্ডের আদিম অধিবাসীদের ভাষা হল মাওরি। নিউজিল্যান্ড ভৌগোলিকভাবে বিচ্ছিন্ন একটি দেশ। এটি অস্ট্রেলিয়ার প্রায় ২০০০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্ব দিকে তাসমান সাগরে মধ্যে অবস্থিত। ফিজি, টোঙ্গা এবং নুভেল কালেদোনি হল নিউজিল্যান্ডের প্রতিবেশি রাষ্ট্র। এদেশের পরিবেশ এবং প্রাণীকুল বৈচিত্রময়।

মনুষ্যবসতি প্রতিষ্ঠার পূর্বে এখানে প্রচুর স্থানীয় পাখি ছিল যার মধ্যে অনেক প্রজাতিই জনসংখ্যা বৃদ্ধির সাথে সাথে ক্রমান্বয়ে বিলুপ্ত হয়ে গেছে। নিউজিল্যান্ড একটি উন্নত দেশ, এটি আন্তর্জাতিকভাবে প্রচলিত মানব উন্নয়ন সূচকের উপরের দিকে অবস্থান করে। এছাড়া দেশটির জীবন-যাত্রার মান, প্রত্যাশিত আয়ুষ্কাল, শিক্ষার হার, শান্তি ও অগ্রগতি, অর্থনৈতিক স্বাধীনতা, ব্যবসা-বাণিজ্যের সুযোগ, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা, রাজনৈতিক অধিকার রক্ষা ইত্যাদি ক্ষেত্রে অগ্রসরমান একটি দেশ। পৃথিবীর সর্বাধিক বাসযোগ্য শহরগুলোর মধ্যে নিউজিল্যান্ডের শহরগুলো অন্যতম। তাই পর্যটক আকর্শনের দিক দিয়ে নিউজিল্যান্ড পৃথিবীর তৃতীয় সুন্দর দেশ।

৪। স্পেন 
স্পেন ইউরোপ মহাদেশের একটি রাষ্ট্র। এর রাজধানী মাদ্রিদ। ৫ লক্ষ ৫ হাজার ৯ শ' বর্গ কিলোমিটার (১৯৪,৮৯৭ বর্গ মাইল) আয়তন নিয়ে স্পেন আয়তনের দিক থেকে বিশ্বের ৫১তম দেশ| দেশটি দক্ষিণ-পশ্চিম ইউরোপের আইবেরীয় উপদ্বীপে অবস্থিত। স্পেন পশ্চিম দিকে পর্তুগাল এবং উত্তর-পূর্ব দিকে ফ্রান্স ও অ্যান্ডোরার সঙ্গে সংলগ্ন। দেশটির উত্তরে বিস্কাই উপসাগর, দক্ষিণ দিকে জিব্রাল্টার প্রণালী, প্রণালীর দক্ষিণে মরক্কো, পশ্চিম ও দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে আটলান্টিক মহাসাগর। পূর্ব ও দক্ষিণ-পূর্ব দিকেভূমধ্যসাগর। স্পেন এর গ্রামগুলো অসাধারণ প্রাকৃতিক বৈচিত্রপুর্ণ।

এর সমুদ্র তীরের সৌন্দর্য সারা বিশ্ববাসীকে কাছে টানে। এর দ্বীপগুলোর সৌন্দর্য নিজের চোখে না দেখে অনুভব করা সম্ভব নয়। এটি পৃথিবীর সর্বাধিক উন্নত দেশগুলোর মধ্যে একটি। বহু বছর ধরেই ভ্রমন পিপাসু মানুষের পুছন্দের গন্তব্যস্থল গুলোর মদ্ধ্যে স্পেন অন্যতম।

৫। আইসল্যান্ড
আইসল্যান্ডের রাজধানি রেকিয়াভিক। আইসল্যান্ড এর নাম শুনলেই মনে হয় বরফে ঢাকা এক পৃথিবী যেখানে একমাত্র রঙ হল সাদা। যেখানে সারা বছর ক্রমাগত তুষার পড়ে আর বাতাসে শুধুই তুষারঝড়ের গান। কিন্তু আসলে কি তাই? একদম না! নাম আইসল্যান্ড হলেও এই দেশ মোটেই বরফে ঢাকা নয়! এমনকি তেমন ভয়ঙ্কর ঠাণ্ডাও নয়। বরং কল্পকাহিনীর মতো চোখজুড়ানো সব দৃশ্যপট রয়েছে এই দ্বীপদেশের পুরোটা জুড়ে।

আগুন আর বরফ, এই দুয়ের মিলনে আপনার কল্পনাকেও হার মানাবে আইসল্যান্ড। কি আছে আইসল্যান্ডে? প্রকৃতির সবচাইতে চরম দুইটি দশা, জমাট হিমবাহ আর গনগনে সক্রিয় আগ্নেয়গিরি একে অপরকে আলিঙ্গন করে রয়েছে, এমনটা আর কোথায় দেখতে পাবেন আপনি? পাহাড়ি এই দ্বীপের অবস্থান উত্তর আটলান্টিক মহাসাগরে।

সুত্র: র‍্যাংকার ডটকম।

 

You might like